মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫’

তথ্য-প্রযুক্তি ভিত্তিক ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫’ আগামি বছরের ৯ থেকে ১২ ফেব্রুয়ারি চার দিনব্যাপি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে।বিগত কয়েকবারের মত বৃহৎ এই আইটি ইভেন্টের আয়োজন করছে সরকারের তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। কর্মসূচি আয়োজনে সহায়তা করবে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল(বিসিসি), বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রাম।তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক আজ মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ কম্পিটার কাউন্সিল (বিসিসি) মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান।প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ভিশন ২০২১-এর স্বপ্নদ্রষ্টা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সম্মেলন উদ্বোধন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়।’সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫ কে আকর্ষণীয়, অর্থবহ ও সফলভাবে আয়োজন করার লক্ষ্যে আইসিটি খাতের আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্বকে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫ তে প্রদর্শনী ছাড়াও সেমিনার, কর্মশালা, আইটি ক্যারিয়ার ফেয়ার ও সিইও নাইট অনুষ্ঠিত হবে। এতে সফট এক্সপো, ই-গভর্ন্যান্স এক্সপো, মোবাইল ইনোভেশন এক্সপো, ই-কর্মাস ও বিজনেস প্রসেস আউটসোসিং (বিপিও) ফোরাম এবং নতুনভাবে যুক্ত হচ্ছে উইমেন আইটি ফোরাম ও চিলড্রেন ফোরাম। তাছাড়াও বিভিন্ন দেশের মন্ত্রীদের সমন্বয়ে মিনিস্ট্রিয়াল কনফারেন্সের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে।প্রতিমন্ত্রী জানান, এউপলক্ষে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যমগুলোতে স্যোসাল আড্ডার ব্যবস্থা করা হবে, যাতে এখাতের উন্নয়নের জন্য যারা চিন্তা করেন, যারা দেশের বাইরে যারা আছেন, তারাও এতে যুক্ত হওয়ার সুযোগ পান।তিনি জানান, ৯-১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫ প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিনা মূল্যে এতে সকলের প্রবেশের ব্যবস্থা থাকবে।প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনশক্তিকে জনসম্পদ মনে করেন। তিনি ১৬ কোটি মানুষকে বোঝা মনে করেন না, সম্পদ মনে করেন। ধনি দেশগুলোতে তেল, সোনা, হীরা অনেক কিছু আছে। কিন্তু তাদের আমাদের মতো জনসম্পদ নেই। তাই তারা অনেক কিছু করতে চাইলেও তা করতে পারেন না। আমরা বিত্তের দিক দিয়ে পিছিয়ে থাকলেও মেধার দিক থেকে পিছিয়ে নেই।তিনি বলেন ‘গত বছর আমরা ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৪ আয়োজন করেছি। তবে তার আগে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১২, ই-এশিয়া ২০১১ সফলতার সাথে আয়োজন করেছি। এসবের অভিজ্ঞতা নিয়েই আমাদের এবারের আয়োজন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৫।’প্রতিমন্ত্রী বর্তমান বিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তি জনগণের ক্ষমতায়ন ও দারিদ্র দূরীকরণের অন্যতম হাতিয়ার উল্লেখ করে বলেন, এই হাতিয়ারকে ধারণ করে বাংলাদেশ নিরন্তরভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা আমাদের অর্জনগুলো বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে চাই, জানাতে চাই, জানতে চাই, দেখতে চাই, দেখাতে চাই। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড আমাদের জন্য সে সুযোগের দুয়ার উন্মোচন করে দেবে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিণির্মানের ক্লান্তিহীন প্রয়াসে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড এক ভিন্নমাত্রা যোগ করবে বলে মনে করেন তিনি।জুনাইদ আহমেদ পলক জানান, এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে সহযোগি সংগঠন হিসেবে রয়েছে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস), অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটস বাংলাদেশ (অ্যামটব), ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি), বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য), বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম (বিআইজেএফ), বাংলাদেশ ওইমেন ইন আইটি (বিডব্লিউআইটি) ও সিটিও ফোরাম।সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের পরিচালক কবির বিন আনোয়ার, হাইটেক পার্কের এমডি হোসেন আরা বেগম, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাসেল টি আহমেদসহ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।


Share with :

Facebook Twitter